গুগলের সহয়তায় মানসিক ভারসাম্যহীন মাকে ছেলের কাছে পৌছে দিলেন দুই যুবক

0
64
গুগলের সহয়তায় মানসিক ভারসাম্যহীন মাকে ছেলের কাছে পৌছে দিলেন দুই যুবক

মানসিক ভারসাম্যহীন ও স্মৃতি শক্তি হারিয়ে অনেকটায় পাগলির বেশে পথে পথে ঘুর ছিলেন কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের কুশোবাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা বিউটি খাতুন (৪৭)। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার সাধুহাটি ইউনিয়নের বংকিরা গ্রামে এসে পথে পথে ঘুরছিলেন। পরে গুগলের সহয়তায় মানসিক ভারসাম্যহীন মাকে ছেলের কাছে পৌছে দিলেন দুই যুবক।

সরোজমিনে গিয়ে জানাযায়, উপজেলার বংকিরা গ্রামের ওসমান গণির ছেলে মোঃ নাজমুল হক জীবন, শওকত আলীর ছেলে মোঃ রিপন আহম্মেদসহ কয়েক জন যুবক গুগোল ম্যাপ ব্যবহার করে, উক্ত মানসিক ভারসাম্যহীন স্মৃতি শক্তি হারা মায়ের দেওয়া অস্পষ্ট ঠিকানার উপরে খোজ করা হয়। পরে ঐ এলাকার চেয়াম্যান মেম্বরের ফোনের মাধ্যমে ছেলে বীপ্লবের সন্ধান পায়। নাজমুল হক জীবন ও রিপন আহম্মেদের আপ্রাণ চেষ্টায় অবশেষে মাকে ছেলের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব হয়। অবশেষে মা ও ছেলের সাক্ষাত ঘটে বংকিরার ঈদগাহ ময়দানে ডালুর টোং চায়ের দোকানে। মা ছেলের এমন মিলন ছিলো অনেকটা আবেগ জড়ানো মহুর্তের। মা ছেলের এমন সেতু বন্ধনের একত্বতার মিলন দেখে সেখানে উপস্থিত থাকা লোকজনের মাঝে সৃষ্টি হয় এক আবেগ ঘোন মহুর্তের।

নাজমুল জানান, মানবিকতার দিক থেকে কাজটা করেছি, আল্লাহ সহায় ছিলো আমাদের চেষ্টার পক্ষে আর তাই বীপ্লবের মাকে তার কাছে ফিরে দিতে পেরেছি।
আরো বলেন, অনলাইনের যুগে অনেক কিছুই করা সম্ভব, শুধুমাত্র একটু তথ্য পেলেই গুগোল ম্যাপের সহায়তাই সবতথ্য বের করা সম্ভব।
রিপন আহম্মেদ জানান, খুব ভালো লাগছে এমন একটি মহত কাজের সহযোগি বন্ধু হতে পেরে। নাজমুলের মতো মানবিক মনের প্রয়োজন আছে। তার প্রচেষ্টায় আমরা আজ এমন কাজের ইতিহাস হতে পারলাম বৈকি।

সেলিম হোসেন, সদর ঝিনাইদহ:/

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here