কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের পাশে সমগ্র মুসলিম বিশ্ব

0
7

আমার নিউজ ডেক্স: জঙ্গিবাদে মদত দেওয়া নিয়ে এমনিতেই চাপে রয়েছে পাকিস্তান। এই অবস্থায় সেই চাপ বাড়িয়ে দিল মুসলিম রাষ্ট্রগুলির আন্তর্জাতিক সংগঠন অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কনফারেন্স বা ওআইসি।

পাকিস্তান মুসলিম রাষ্ট্র হলেও কাশ্মীর প্রসঙ্গে ইসলামাবাদকে সমর্থন করেনি ওআইসি। দির্ঘ সাত দশক ধরে কাশ্মীর নিয়ে চলা বিতর্কে ভারতকেই সমর্থন জানিয়েছে ওআইসি। সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ।

শুক্রবার আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে ওআইসি-র ৪৬তম সম্মেলন। ওই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত ছিলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। বর্তমানে পাকিসানের সঙ্গে ভারতের মধ্যে চলা অস্থির অবস্থায় সুষমা স্বরাজের ওআইসি-র সম্মেলনে উপস্থিতি ছিল গুরুত্বপূর্ণ। অন্যদিকে ভারতের বিদেশমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানোয় সম্মেলন বয়কট করে পাকিস্তান। ওআইসি-র প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্র হয়েও সম্মেলনে হাজির ছিল না পাকিস্তানের কোনও প্রতিনিধি। ফাঁকা পরেছিল পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রীর জন্য নির্দিষ্ট করে রাখা আসনটি।

ওআইসি-র ৫০ তম বর্ষপূর্তির আগে ৪৬ তম সম্মেলন ছিল সূচনা অনুষ্ঠান। সেই অনুষ্ঠানে ভারতের বিদেশমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানোয় খুশি বিদেশমন্ত্রক। ভারতকে বিশেষ সম্মান দেওয়ার কারণে সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর বিদেশমন্ত্রিকে ধন্যবাদ জানিয়েছে ভারতের বিদেশমন্ত্রক।

১৯৪৭ সালে ধর্মের কারণে ভাগ হয়েছিল দেশ। সেই সময় থেকেই কাশ্মীর নিয়ে সমস্যা থেকে গিয়েছে। সেই সমস্যার ক্ষেত্রেও অন্যতম বড় অন্তরায় হচ্ছে ধর্ম। আরও ভালো করে বললে ইসলাম ধর্ম। সেই বিষয়ে মুখ খুলেছে ওআইসি। ওআইসি-রপক্ষ থেকে বলা হয়েছে, “আমাদের অবস্থান খুব স্পষ্ট এবং সকলেই তা জানে। আমরা আবারও বলছি যে জম্মু-কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ এবং সম্পুর্ন বিষয়টিই অত্যন্ত কঠিনভাবে ভারতের অভ্যন্তরীণ।” বিদেশমন্ত্রকের এক মুখপাত্র এই তথ্য শনিবার সংবাদমাধ্যমের কাছে জানিয়েছেন।

অন্যদিকে ওআইসি সম্মেলনে পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রীর অনুপস্থিতিকে নিজেদের কূটনোইতিক সাফল্য বলে মনে করছে ভারত। কারণ ওআইসি-র প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্র হয়েও ৪৬ তম সম্মেলনে অংশ নিতে পারেনি পাকিস্তান। তাও আবার ভারতের বিদেশমন্ত্রী আমন্ত্রিত থাকার কারণে। এই বিষয়টি সরকারিভাবে জানিয়েও দিয়েছে পাকিস্তান।
বিশ্বের বাকি ইসলামি দেশগুলির প্রতিনিধিরা হাজির থাকলেও, পাকিস্তানের আসন খালি পড়ে ছিল। সেই ফাঁকা আসনের সামনেই এদিন ভাষণ দেন সুষমা স্বরাজ। তিনি বলেন, “মানবজীবনকে রক্ষা করতে হলে, যে সমস্ত দেশ সন্ত্রাসে মদত দিচ্ছে, তাদের সতর্ক করতে হবে। বলতে হবে, দেশের মাটিতে জঙ্গিদের নিরাপদ আশ্রয় দেওয়া যাবে না। সন্ত্রাসে মদত দেওয়া বন্ধ করতে হবে এবং দেশের মাটিতে যে জঙ্গি শিবিরগুলি রয়েছে, অবিলম্বে সেগুলি গুঁড়িয়ে দিতে হবে।


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here